রাজধানীর লালমাটিয়া গার্লস স্কুলের ছাত্রী অপহরণের দুই মাস পরেও উদ্ধার করতে পারেন নেই পুলিশ।

0
20

অনলাইন ডেস্ক – আলোকিত স্বদেশ

রাজধানীর লালমাটিয়া গার্লস স্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্রী উপমা রায় ঐশি অপহরণের দুই মাস পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত উদ্ধার করতে পারেন নেই পুলিশ।

প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়-গত ৪ মার্চ ঐশি তার বাসার কাছে মুদি দোকানে ডিম নেয়ার জন্য গেলে অপহরণ কারী জয় কুমার(২৭) ও তার ৭/৮ সহযোগীরা মিলে ঐশিকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহরণের খবর পরিবারে জানাজানি হলে ঐশির বাবা ও স্হানীয় লোকজনরা চেষ্টা করেন উদ্ধারের জন্য। কিন্তু তাতে কোন লাভ হয় নেই।

পরে স্হানীয় লোকজন মারফত জানতে পারেন অপহরণ কারী জয় কুমার আশুলিয়ার দোসাদই এলাকায় তার মামা রতন ভূঁইয়ার বাড়িতে থাকতেন। দীর্ঘ দিন যাবত ঐশীর স্কুলে যাওয়া আসার পথে বিরক্ত করতো বখাটে জয় কুমার। এছাড়াও প্রেমের প্রস্তাবসহ নানা রকম কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন ঐ বখাটে।

পরে ঐশি তার বাবা মায়ের কাছে জয় কুমারের উত্তোক্ত করার বিষয় টি জানান। প্রায় সময় বখাটে জয় কুমার এই রকম ইভটিজিং শুরু করলে ঐশির বাবা উত্তম কুমার তা প্রতিবাদ করেন। এতে ঐ বখাটে উত্তম কুমার ক্ষিপ্ত হয়ে গত ৪ মার্চ ঐশির বাসার সামনে থেকে অপহরণ করেন জয় কুমার ও তার সহযোগীরা

ঐশীর পরিবারের লোকজনরা অনেক খোঁজা খুঁজি করার পরও না পেয়ে অবশেষে গত ০৫ মার্চ ঐশীর মা চন্দনা রানী বাদী হয়ে রাজধানীর মোহাম্মদ পুর থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন। চন্দনা রানী আলোকিত স্বদেশ কে জানান- ঐশী রাজাধানীর লালমাটিয়া গার্সল স্কুল থেকে গত ২০২০ সালে এসএসসি পরিক্ষা দিয়েছেন।

ঐশীর গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলার রাজার হাট উপজেলার চাকিরপাশা এলাকায়। তার বাবার কর্মস্হল ঢাকা, মোহাম্মদপুরে হওয়ায় সেখানেই বাবা মায়ের সাথে থাকতেন ঐশী।

অপরদিকে অপহরণ কারী জয় কুমারের গ্রামের বাড়ি রাজার হাট উপজেলার উপ হরিশ্বর তালুক এলাকায়।

ঐশির মা চন্দনা রানী আলোকিত স্বদেশ কে আরো জানান- আমার মেয়ে অপহরণের পর আমরা অপহরণ কারীর আত্মীয় স্বজনদের সাথে যোগাযোগ করে অনুরোধ করেছি মেয়েকে ফেরত দেয়ার জন্য কিন্তু তারা সেটা কর্ণপাত করেন না। উল্টো আমাদেরকে হুমকি দেন অপহরণ মামলা তুলে নেয়ার জন্য।

এ বিষয়ে মোহাম্মদ পুর থানার পুলিশ আমাদেরকে জানিয়েছেন-স্কুল ছাত্রী অপহরণ ব্যাপারটি নিয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। যে কোন সময় অপহরণ কারীরা গ্রেফ তার হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here